অবৈধ এনজিও বন্ধ করতে ইউএনও’র নির্দেশ

 

ভোলাহাটে অবৈধ ভাবে চলা এনজিও’দের ঋণ কার্যক্রম বন্ধ করতে নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মশিউর রহমান।

৯ মার্চ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলায় ঋণ কার্যক্রম চালিয়ে আসা ৫৫টি এনজিও মালিককে ডেকে আলোচনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার।

আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রাব্বুল হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান গরিবুল্লাহ দবির, চার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান যথাক্রমে ইয়াজদানী জর্জ, আব্দুল কাদের, আরজেদ আলী ভুটু, মশফিকুল ইসলাম তারা, উপজেলা সমবায় অফিসার আব্দুল হালিম, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা কামরুজ্জামান সরদার। আলোচনায় উপস্থিত এনজিও মালিকদের এনজিও পরিচালনার বৈধতা আছে কিনা জানতে চাওয়া হলে কোন বৈধ্যতা নেই বলে স্বীকার করেন তারা। তবে বৈধতা পেতে সময়ের দাবী জানান এনজিও মালিকেরা।

ঋণ পরিচালনার জন্য মাইক্রোকেডিট রেগুলেটারীর অথারেটির লাইসেন্স আছে কিনাএমন প্রশ্নের জবাবে এনজিও মালিকেরা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে লাইসেন্স দেয়া বন্ধ ছিলো সম্প্রতি লাইসেন্স দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে সময়ের মধ্যে লাইসেন্স করার কথা জানান।

বিষয়টি উপস্থিত দায়িত্বশীলগণ তাৎক্ষণিক মাইক্রোকেডিট রেগুলেটারী অথারেটির সাইসেন্স প্রদানকারী উপ-পরিচালকের সাথে কথা বলে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য ফোনে যোগাযোগ করেন।

সবার উপস্থিতিতে ফোনে উপ-পরিচালক জানান, মাইক্রোকেডিট রেগুলেটারী অথারেটির লাইসেন্স ছাড়া কেউ ঋণ কার্যক্রম চালাতে পারবেন না।

দীর্ঘ আলাপের পর জানা যায় উপস্থিত কোন এনজিও’র লাইসেন্স নেই। ফলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপস্থিত সকল এনজিও মালিকদের ঋণ কার্যক্রম গুটিয়ে নিতে নির্দেশ দেন।

তিনি বলেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানিয়ে দেন।

এদিকে যমুনা এনজিও সংস্থার মালিক আব্দুল ময়েন বলেন, অল্প সময়ের মধ্যে ঋণ কর্যক্রম গুটিয়ে নিলে এনজিওগুলোকে চরম মাশুল গুনতে হবে। অনেকে চাকরী হারিয়ে বেকার হবে। মাঠে ঋণ আছে এ টাকা উঠাতে বেকায়দায় পড়তে হবে বলে জানান।

Author: Faruk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *