চাঁপাইনবাবগঞ্জের বহরমে পূর্ব শত্রুতার জেরে সন্ত্রাসী বাহিনীর হামলা, থানায় মামলা দায়ের

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ :

পূর্ব শত্রুতার জের ধরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার চুনাখালি গুমপাড়ার বাসিন্দা শাম্মুলের ছেলে সাগর (২৫) নামে ১ যুবকের উপর হামলা চালিয়েছে ১৫-২০ জনের একই এলাকার সন্ত্রাসী বাহিনী।

গত ১১ এপ্রিল রোববার সকাল সাড়ে ১১ টার সময় বহরম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ৪ রাস্তার মোড়ে এ হামলার ঘটনাটি ঘটে।

আসামিরা হচ্ছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জের রামচন্দ্রপুর হাটের মৃত লালুর ছেলে রহমত আলী মেম্বার (৩৮), চুনাখালি গুমপাড়ার হবুর ছেলে হানিফ (৩০), একই এলাকার মতির ছেলে সোহেল (২৭), বহরম ঘোষপাড়ার লতিফ খ্যাপার ছেলে ইঞ্জিল (৩২), একই এলাকার মৃত দানেষ ঘোষের ছেলে জিয়েল (২৮), একই এলাকার মৃত জহিরের ছেলে শরিফ (২৭), একই এলাকার হুটু বাইরার ছেলে সেলিম (৩০), রামচন্দ্রপুর হাটের মনিরুল ইসলামের ছেলে রাফি (২০), বহরম হটাৎ পাড়ার লতিফ  ফাটার ছেলে রাব্বানী (৩৫)।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের রাণীহাটি ইউনিয়নের গুমপাড়া চুনাখালির বাসিন্দা হাজেরা বেগম ও সোহরাব হোসেনের ছেলে এবং আহত সাগরের চাচাত ভাই রাজমিস্ত্রী মো. মোস্তাকিম (২১) বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেছেন। মামলা নং-২৯।

এ বিষয়ে সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মো. মোজাফফর হোসেন জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হামলার ঘটনায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে।  আসামি ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ১১ এপ্রিল রোববার সকাল সাড়ে ১১ টার সময় বহরম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন ৪ রাস্তার মোড়ে আসামিরা ১৫-২০ জন সংঘবদ্ধ হয়ে লাঠি লাদনা, লোহার রড, ধারালো হাঁসুয়া, চাইনিজ কুড়াল, ধারালো কাস্তাসহ দেশীয় অস্ত্রে সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সাগরের পথরোধ করে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে।

এ সময় সাগর আসামিদের গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে আসামিরা এলোপাথাড়ি মারপিট করে ছিলাফুলা জখম করে সাগরকে। হত্যার উদ্যেশে সাগরের মাথায় ধারালো হাঁসুয়ার কোপ মারা হয় এবং জখম করা হয়। আহতর চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিদিয়ে আসামিরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

পরে গুরুতর আহত সাগরকে উদ্ধার করে একই এলাকার মারুফ, আশরাফুল, মাসুদ প্রথমে সদর আধুনিক হাসপাতালের নিয়ে আসে। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় চিকিৎসকরা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। বর্তমানে সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে সাগর।

Author: Faruk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *