বিমান অফিসে টিকেটপ্রত্যাশীদের উপচে পড়া ভিড়, ধাক্কাধাক্কি-ভাঙচুর

টিকেটপ্রত্যাশী যাত্রীদের অস্বাভাবিক চাপে চট্টগ্রাম নগরীতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কার্যালয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। যাত্রীদের হট্টগোল ও ধাক্কাধাক্কির পাশাপাশি অফিসে ভাঙচুরও হয়েছে।

বুধবার (১২ আগস্ট) সকাল থেকে নগরীর ষোলশহরে বিমান বাংলাদেশের অফিসে হাজারখানেক টিকেটপ্রত্যাশী ভিড় করেন। এরা সবাই মধ্যপ্রাচ্যের আবুধাবি যাওয়ার জন্য টিকেট কাটতে এসেছিলেন। তাদের কারও ভিসার মেয়াদ শেষ, কেউ সেই দেশ থেকে ভিসার অ্যাপ্রুভাল এনেছেন। কেউ কেউ বলছেন, এক সপ্তাহের মধ্যে যেতে না পারলে ভিসা বাতিল হয়ে যাবে। কিন্তু পর্যাপ্ত ফ্লাইট না থাকায় সবাই কাঙ্ক্ষিত টিকেট পাচ্ছিলেন না বলে হট্টগোল শুরু হয়ে যায়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, টিকেটের জন্য বুধবার ভোর থেকেই বিমান অফিসে ভিড় শুরু হয়। ভিড়ের চাপ সামলাতে না পেরে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় খবর দেওয়া হয়। পুলিশ এসে টিকেটপ্রত্যাশীদের লাইনে দাঁড় করিয়ে শৃঙ্খলা আনার চেষ্টা করেন। তবে দুপুরের দিকে ভিড় বেশি হলে ধাক্কাধাক্কি ও হইচই শুরু হয়। একপর্যায়ে বিমান অফিসের বাইরে কাচের দরজা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।

জানত চাইলে পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভূঁইয়া বলেন, ‘বিমান অফিসে প্রতিদিন লোক আসত ২০-৫০ জন। সেখানে মঙ্গলবার এসেছে কমপক্ষে ৫০০ জন। বুধবার হাজারখানেক। যারা এসেছেন, তাদের অনেকের আগের বুকিং ছিল, কিন্তু বিমান চলাচল বন্ধ থাকায় যেতে পারেননি। এখন আবার শিডিউল নিতে এসেছেন। কিন্তু বিমান কর্তৃপক্ষের কাছে এত টিকেট নেই। তখন হইচই ও ধাক্কাধাক্কি হয়েছে। এতে বিমান অফিসের মূল কাউন্টারের বাইরে একটি কাচের দরজা ভাঙচুর হয়েছে। পরে আমরা গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি।’

বিমান বাংলাদেশ কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে সপ্তাহে চারটি ফ্লাইট যাচ্ছে আবুধাবিতে। আরও দুটি ফ্লাইটের জন্য আবেদন করেছে সংস্থাটি। সেই দু’টি ফ্লাইটের অনুমোদন পাওয়া গেলে আর সংকট থাকবে না বলে তারা মনে করছেন।

জনশক্তি কার্যালয়ের হিসাব বলছে, করোনা পরিস্থিতিতে দেশে প্রায় এক লাখ অভিবাসী আটকা পড়েছেন। সূত্র : সারাবাংলা।

41900cookie-checkবিমান অফিসে টিকেটপ্রত্যাশীদের উপচে পড়া ভিড়, ধাক্কাধাক্কি-ভাঙচুর

Author: Faruk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *