ফকিরহাটে মানছেনা কেউ সামাজিক দূরত্ব , স্বাস্থ্যবিধি

শিহাব উদ্দিন রুবেল বাগেরহাট :

ফকিরহাটে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা। প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ থাকলেও জনসাধারণের মাঝে নেই সচেতনতা। এভাবেই চলতে থাকলে করোনায় সংক্রমিত হবে বহুগুন। দিন দিন বেড়েই চলেছে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা। সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য রয়েছে প্রশাসনের ব্যাপক তৎপরতা ও কঠোর নজরদারি । তবুও কেউ মানছেনা সামজিক দুরত্ব, মানছেনা স্বাস্থ্যবিধি। প্রশাসনের ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষকে দেখলে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি পালনে সবাই ব্যস্ত থাকলেও প্রশাসন চলে গেলে মুখের মাস্ক যাই পকেটে, আর আড্ডা স্থল হিসাবে জায়গা করে নেই চায়ের দোকান গুলোতে। যত্রতত্র ঘুরে বেড়াচ্ছে মাস্ক ছাড়াই। তবে মাস্ক না পড়ার কারণ জানতে চাইলে ঠেলে দেয় অজুহাতের ফুলঝুরি। শুধু সড়কে নই,কাচা বাজারেও একই অবস্থা। তাছাড়া অনেক ফার্মেসীতে নেই স্বাস্থ্যবিধির বালাই,সামাজিক দূরত্ব মানছেনা কেউ। এদিকে জেলায় সবথেকে বেশি সংক্রমিত হয়েছে ফকিরহাট উপজেলা। শুধু সংক্রমিত নই,আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যাও বেশি। ১৭ জুলাই অবদি এই উপজেলায় ৯৮ জন সংক্রমিত হয়েছেন কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসে। আর মৃত্যুবরণ করেছেন দুই জন চিকিৎসক , একজন গ্রাম পুলিশ সহ মোট ৫ জন এবং উপসর্গ নিয়ে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে মৃত্যুবরণ করেছেন আরো একজন। এব্যাপারে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান স্বপন দাশ বলেন,উপজেলায় সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য আমরা চেষ্টা করছি। স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে সচেতন করা হচ্ছে। গত ঈদুল ফিতর এ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে মানুষের আগমণের ফলে সংক্রমণ বেড়েছে। তবে এই ঈদুল আযহায় আমরা বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করছি। বাস্তবায়ন করতে পারলে আশা করি সংক্রমণের ঝুকি কমে যাবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাঃ শাহানাজ পারভীন বলেন,করোনা ভাইরাস প্রতিরোধকল্পে আমরা প্রতিনিয়ত সকলকে সচেতন করে যাচ্ছি। বিভিন্ন স্থানে সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের দায়ে করছি জরিমানা। যাদের মাস্ক নাই তাদের মাস্ক বিতরণ করছি। শুধু প্রশাসন নই সকলের প্রয়োজন নিজ নিজ স্থান থেকে সচেতন হওয়া।

Author: Faruk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *