আবুধাবির যুবরাজকে ইসরায়েল পরিদর্শনের আমন্ত্রণ ইসরায়েলি প্রেসিডেন্টের

আবুধাবির যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানকে জেরুজালেম ও ইসরায়েল পরিদর্শনের আমন্ত্রণ জানাল ইসরায়েলের প্রেসিডেন্ট রিভেন রিভলিন। ইসরায়েল-আমিরাত স্বাভাবিক সম্পর্কের ‘ঐতিহাসিক শান্তি চুক্তি’ হওয়ার প্রথম সপ্তাহেই রাষ্ট্রীয়ভাবে এ আমন্ত্রণ জানানো হয়।

গত সোমবার ইসরায়েলের গণমাধ্যমে প্রকাশিত আরবিতে লিখা একটি আমন্ত্রণপত্র প্রকাশ পায়। এতে প্রেসিডেন্ট রিভেন রিভলেন যুবরাজ মুহাম্মাদ বিন জায়েদকে জেরুজালেম ও ইসরায়েলে আসার আমন্ত্রণ জানানো হয়।

প্রেসিডেন্ট রিভলিনের স্বাক্ষরিত আমন্ত্রণপত্রে বলেন, ‘আমি আশা করি, এ পদক্ষেপ আঞ্চলিক জাতি-গোষ্ঠীর সঙ্গে আমাদের পরস্পরিক আস্থা তৈরিতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করবে।’

রিভলিন আরো বলেন, ‘সাহসী এ পদক্ষেপের মাধ্যমে আমাদের পরষ্পরিক বোঝাপড়া অনেক দৃঢ় হবে। আমাদের দেশকে উন্নতি-অগ্রগতির দিকে নিয়ে যাবে এবং মধ্যপ্রাচ্যে স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠায় সহায়ক হবে।’

পত্রের শেষে আমন্ত্রণ জানিয়ে প্রেসিডেন্ট রিভলিন বলেন ‘এ সুযোগে ইসরায়েলের জনগনের পক্ষ থেকে এবং ব্যাক্তিগতভাবে আমি মহান ব্যক্তিকে ইসরায়েল ও জেরুজালেম পরিদর্শন এবং আমাদের সম্মানিত অতিথি হওয়ার আমন্ত্রণ জানাচ্ছি’

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার (১৪ আগস্ট) আমেরিকা প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সহায়তায় ইসরায়েল-আমিরাত স্বাভাবিক সম্পর্কের ‘শান্তি চুক্তি’ সম্পন্ন হয়। ইতিমধ্যে গত ১৬ আগস্ট থেকে ইসরায়েলের সঙ্গে আমিরাতের টেলিফোন সেবা চালু হয়েছে। আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল্লাহ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান ও ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গাবি আশকেনাজির মধ্যে টেলিফোনে যোগাযোগ হয়।

বিগত ২৫ বছরের মধ্যে উপসাগরীয় আরব দেশগুলোর মধ্যে আমিরাতের সঙ্গে প্রথম বারের ইসরায়েলের স্বাভাবিক সম্পর্ক তৈরি হয়। আগামী সপ্তাহে উভয় দেশের মধ্যে পর্যটন, টেলিসেবা ও স্বাস্থ্যসেবাসহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি হবে।

সূত্র : আল আরাবিয়া

55220cookie-checkআবুধাবির যুবরাজকে ইসরায়েল পরিদর্শনের আমন্ত্রণ ইসরায়েলি প্রেসিডেন্টের

Author: Faruk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *