অ্যামাজনকে টক্কর দিতে অনলাইন ওষুধ ব্যবসায় পা রাখল মুকেশ আম্বানির রিলায়েন্স

অ্যামাজনের সঙ্গে টক্কর দিতে এবার ই-ফার্মেসির দুনিয়ায় পা রাখল মুকেশ অম্বানীর রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ।৬২০ কোটি টাকার বিনিময়ে ভাইটালিক হেলথকেয়ার সংস্থার ৬০ শতাংশ শেয়ার কিনে নিয়েছে ভারতের সবচেয়ে ধনী এই কোম্পানি। এর ফলে ভাইটালিকের ভর্তুকিপ্রাপ্ত তিন সংস্থা ট্রেসারা হেলথ প্রাইভেট লিমিটেড, নেটমেডস মার্কেট প্লেস লিমিটেড এবং ডাঢা ফার্মা ডিসট্রিবিউশন প্রাইভেট লিমিটেডের ১০০ শতাংশ মালিকানা রিলায়েন্সের হাতে উঠল।

মঙ্গলবার রাতে নেটমেডসে বিনিয়োগের কথা ঘোষণা করে রিলায়েন্স রিটেল ভেঞ্চার্স লিমিটেড (আরআরভিএল)। সংস্থার ডিরেক্টর ইশা আম্বানি বলেন, ‘প্রত্যেক দেশবাসীকে ডিজিটাল পরিষেবা পৌঁছে দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ আমরা। তারই ফলস্বরূপ এই বিনিয়োগ। নেডমেডসের অন্তর্ভুক্তিতে রিলায়েন্সের হাত আরও মজবুত হলো। এর ফলে দেশবাসীকে সাধ্যের মধ্যে অথচ উন্নত মানের স্বাস্থ্য পরিষেবা পৌঁছে দিতে পারব আমরা। ডিজিটাল পরিষেবার মাধ্যমে গ্রাহকের নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর চাহিদাও পূরণ করা সম্ভব হবে।’

ভাইটালিক এবং তার ভর্তুকিপ্রাপ্ত সংস্থাগুলো নেটমেডস নামেই পরিচিত। ২০১৫ সালে নেটমেডসের যাত্রা শুরু হয়। লাইসেন্সপ্রাপ্ত অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে বাড়ি বাড়ি ওষুধ ও হেলথকেয়ারসামগ্রী পৌঁছে দেয় তারা। নেটমেডসের ওয়েব পোর্টাল এবং অ্যাপের মাধ্যমে ডাক্তার এবং ডায়াগনস্টিক সেন্টারেও অ্যাপয়েন্টমেন্ট বুক করা যায়। কিন্তু অনলাইন ওষুধ সরবরাহে লাভের অংশ তুলনামূলক কম। তার জেরে গত এক বছর ধরে ধুঁকছিল সংস্থাটি। খোঁজ চলছিল বিনিয়োগকারীর। সেই অবস্থাতেই তাদের হাত ধরল রিলায়েন্স।
করোনাভাইরাসের প্রকোপে গোটা দেশে মহামারি দেখা দেওয়ায়, এই মুহূর্তে অনলাইন কেনাকাটার দিকেই ঝুঁকেছেন সাধারণ মানুষ। তাতে গত কয়েক মাসে ই-কমার্স সংস্থাগুলো অনেকটাই ঘুরে দাঁড়িয়েছে। স্বাভাবিকভাবে অ্যামাজন, ওয়ালমার্ট অধীনস্থ ফ্লিপকার্ট, রিল্যান্সের জিয়োমার্ট এবং অন্যান্য সংস্থাগুলির মধ্যে প্রতিযোগিতাও বেড়েছে।

তবে শুধু নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রই নয়, ওষুধপত্রও এখন অনলাইনই কিনছেন সাধারণ মানুষ। সুযোগ বুঝে গত সপ্তাহেই ই-ফার্মেসির দুনিয়ায় প্রবেশ করে অ্যামাজন। অ্যামাজন ফার্মেসির মাধ্যমে আপাতত বেঙ্গালুরুতেই পরিষেবা দিচ্ছে তারা। খুব শিগগির গোটা দেশে এই পরিষেবা চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। তবে নেটমেডসে বিনিয়োগ করে ছক্কা হাঁকিয়েছে রিলায়েন্স। কারণ, এই মুহূর্তে দেশের প্রায় ২০ হাজার পিন কোড এলাকায় ওষুধ ও স্বাস্থ্য পরিষেবা প্রদান করে নেটমেডস।

ভারতে যদিও ওষুধ বিক্রি বা ই-ফার্মেসি নিয়ন্ত্রণে এখনও পর্যন্ত কোনও আইন চূড়ান্ত হয়নি। তবে তার মধ্যেই ই-ফার্মেসির বাজারে মেডলাইফ, নেটমেডস, ফার্মইজি-র টেমাসেক, সেকোয়া ক্যাপিটালের ওয়ানএমজি-র মতো সংস্থার বাড়বাড়ন্তে ওষুধের দোকানগুলো সংকটে পড়তে চলেছে বলে আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।

ই-ফার্মেসিগুলোর এই বাড়বাড়ন্তে আপত্তি তুলেছেন বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনও। তাদের মতে, ওষুধের দোকানে তবু প্রেসক্রিপশন দেখিয়েই ওষুধ কিনতে হয়। ই-ফার্মেসিগুলোতে সেসবের বালাই না থাকলে, যে কেউ যে কোনও ধরনের ওষুধ কিনতে পারবে।

সূত্র : আনন্দবাজার

59030cookie-checkঅ্যামাজনকে টক্কর দিতে অনলাইন ওষুধ ব্যবসায় পা রাখল মুকেশ আম্বানির রিলায়েন্স

Author: Faruk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *