করোনা যুদ্ধে নিহত শিবগঞ্জের সন্তান পুলিশ সদস্য সুমনের পরিবারের পাশে কি কেউ থাকবে না?

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার কৃতি সন্তান নাটোরে কর্মরত অবস্থায় করোনা যুদ্ধে নিহত পুলিশ সদস্য সুমনের পরিবারের পাশে কি কেউ থাকবে না?

গত ২ আগস্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জের  পুলিশ অফিসার সুমন আলী করোনায় আক্রান্ত হলে তাকে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিনি আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সুমন। একমাত্র মেয়ে সুপকা (৫), স্ত্রী রাবেয়া জান্নাত ও মা-বাবাকে নিয়ে ছিল তাদের সুখের সংসার।

সুমন মারা যাবার পর স্ত্রী, ছোট্ট মেয়ে ও তার অসুস্থ  মা-বাবার জীবন এখন অদ্ধকার। দেখার কেউ নেই। জেলা পুলিশ সাহায্যর হাত বাড়িয়ে দিবে তাদের প্রতি এটাই প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশে কর্মরত এস আই মো. আবু আব্দুল্লাহ জাহিদ পিপিএম ও সুমন আলী একই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেছেন। এ বিষয়ে তিনি জানান, মরহুম সুমন আলী (৪০) বাংলাদেশ পুলিশের গর্ব। সততা তাকে করেছে মহান। করোনায় হেরে যাওয়া সুমনের পরিবার আজ সত্যি বড় অসহায় অবস্থায় আছে।

এসআই জাহিদ আরও বলেন, করোনা যুদ্ধে গত ১৪ আগষ্ট পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছেন নাটোর জেলার বরাই গ্রাম থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সুমন আলী। আমরা দুজন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলাম। এসআই জাহিদ বলেন, আমি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় কর্মরত আছি। তাই বৃহস্পতিবার শিবগঞ্জ উপজেলা সদরে অবস্থিত সুমনের বাড়ি গিয়েছিলাম। সুমনের বাবা-মায়ের সাথে কিছু সময় বসে কথা বললাম।তিনি আরও জানান, সুমনের বাবা-মা দুজনেই অসুস্থ।  প্রতি মাসে ৬ হাজার টাকার ঔষধ লাগে। তার উপর পরিবারের সব খরচ। একমাত্র আয়ের উৎস ছিলো সুমন। সুমনের পারিবারিক সম্পদ বলতে ছোট্ট একটি বসত বাড়ি। সুমন মারা যাওয়াতে চরম কষ্টে দিন যাপন করছেন। তিনি আরও বলেন, সন্তান হারানোর শোক যতটা না কঠিন, তার চেয়ে কঠিন সুমনের বৃদ্ধ বাবা-মার স্বাভাবিক ভাবে বেঁচে থাকা। দেশের সেবা করতে গিয়ে সুমন মৃত্যু বরণ করেছেন। তাঁর বাবা মা যেন বিনা চিকিৎসা বা অবহেলায় না থাকে সে জন্য আমাদের সকলের উদ্যোগ নিতে হবে। অনেক বিত্তশালী ব্যক্তি আছে, যারা মনে করলেই এ দুজনের বাকি জীবনটা কোন সমস্যা ছাড়াই কাটবে। শিবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা, সংসদ সদস্যসহ বিভিন্ন ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান সুমনের বৃদ্ধ মা-বাবা ও স্ত্রী সন্তানের পাশে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিলেই তাদের দুঃখ কষ্ট লাঘব হবে। জানা গেছে, বড়াইগ্রামে কোরবানির ঈদের আগে গরুভর্তি একটি ট্রাক ছিনতাই হয়। সেই ট্রাক উদ্ধারে সুমন আলী নারায়ণগঞ্জ গিয়েছিলন। ধারণা করা হচ্ছে সেখান থেকেই তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। -কপোত নবী।

77720cookie-checkকরোনা যুদ্ধে নিহত শিবগঞ্জের সন্তান পুলিশ সদস্য সুমনের পরিবারের পাশে কি কেউ থাকবে না?

Author: Faruk

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *